মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বইছে স্বস্তির বাতাস । The wind of relief is blowing in the USA

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বইছে স্বস্তির বাতাস
The wind of relief is blowing in the USA


The wind of relief is blowing in the USA
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বইছে স্বস্তির বাতাস
সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অপশাসনের ক্ষত-বিক্ষত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ঘুরে দাঁড়াতে ক্ষমতা গ্রহণের পাঁচ ঘণ্টার মধ্যেই অর্থাৎ 20 জানুয়ারী বুধবার সন্ধ্যায় ডোনাল্ড ট্রাম্পের বেশ কয়েকটি অ-আমেরিকান আইন বাতিলের জন্য সতেরোটি নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেছেন সদ্য শপথগ্রহণ প্রাপ্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের 46 তম প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন । এর অন্যতম আইন হচ্ছে মুসলিম অধ্যুষিত সাতটি দেশের নাগরিকের ভিসা নিষিদ্ধ আইন বাতিল,ড্যাকা পূর্ণবহাল, ফেডারেল ভবন, গণপরিবহন, আন্তস্টেট ভ্রমণকারীদেরমাস্ক বাধ্যতামূলক অন্তত আগামী 100 দিন এবং বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস এর সংক্রমণ রোধ এবং টিকা প্রদানের কর্মসূচি জোরদার, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যাবর্তন, ও প্যারিস চুক্তিতে প্রত্যাবর্তন আদেশ ইত্যাদি । এছাড়া বহুল প্রত্যাশিত অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতা প্রদান সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবও পাঠিয়েছেন মার্কিন কংগ্রেসে । এ সময় সাংবাদিকদের কোন প্রশ্নের উত্তর দেননি জো বাইডেন । তিনি বলেন, অপেক্ষা করুন ব্রিফিং দেওয়া হবে । মাত্র এতোটুকু কথা বলেই জো বাইডেন ভেতরে চলে যান । তবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মত উত্তেজিত হননি কিংবা আক্রমনাত্মক কথাও বলেননি ।

একদিকে ইতিহাস রচনা করে শপথ গ্রহণ এর পরেই মার্কিন সিনেটে সভাপতিত্ব করেন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস । কার সভাপতিত্বে জো বাইডেন ক্যাবিনেটে ইন্টেলিজেন্স ডাইরেক্টর হিসাবে এভরিল হেইন্সকে অনুমোদন দিল মার্কিন সিনেট । একইদিন কমলা এর নেতৃত্বে শপথ গ্রহণ করেন ক্যালিফোর্নিয়া এবং জর্জিয়া থেকে নির্বাচিত 3 জন ডেমোক্রেট সিনেটর । এর মধ্য দিয়ে মার্কিন সিনেটে ডেমোক্রেটদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিশ্চিত হলো ।

 উল্লেখ থাকে যে, হাউসেও ডেমোক্রেটরা সংখ্যাগরিষ্ঠ । তাই নির্বাচনী অঙ্গীকার পূরণের পাশাপাশি সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের গণবিরোধী এবং মানবতা বিরোধী পদক্ষেপ সমূহ পাল্টাতেও তেমন কোন  সমস্যায় পড়তে হবে না জো বাইডেন কে । টান টান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে শপথ গ্রহণ এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের ফ্লোরিডায় গমনের মধ্য দিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্বস্তির বাতাস বইতে শুরু করেছে । ডোনাল্ড ট্রাম্পের লেলিয়ে দেওয়া চরমপন্থীদেরও কোথাও তৎপর হতে দেখা যায়নি । তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটাল হিল সহ সারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা বহাল রাখা হয়েছে যেন যেকোনো ধরনের পরিস্থিতি শক্ত হাতে মোকাবেলা করার জন্য ।।

আরও পড়ুন : হোয়াইট হাউজের সিংহাসন থেকে ট্রাম্পের বিদায় । Trump's departure from the White House throne

Post a Comment

Please do not enter any spam link in the comment box.

Previous Post Next Post